আমাজন ইনফ্লুয়েন্সার কি, বিস্তারিত গাইডলাইন

আগের পর্ব গুলাতে, আমাজন ইনফ্লুয়েন্সার নিয়ে কথা বলেছিজিরো ইনভেষ্টে আমাজন, মার্কেটিং এর ৩য় পর্বে বলেছিলাম যারা, ইংরেজি অনেক দূর্বল বা ডোমেইন হোষ্টিং কেনার মত এবালিটি নাই,বা কিনতে চাচ্ছেন না তারা, আমাজন ইনফ্লুয়েন্সার আসবেন।

যারা আগের পোষ্টি পড়েনি, এখান থেকে পড়ে আসুন । তবে, এই পোষ্টির পর আমি আবার এফিলিয়েট নিয়ে কথা বলবো, তবে যারা ওয়েবসাইট দিয়ে মার্কেটিং করতে চান তাদের ও এ পোষ্টি প্রয়জন আছে ।

আপনি যদি আগের পর্ব গুলা না পড়ে থাকেন তবে পড়ে ফেলুন না হয় নতুন হলে অনেক কিচু বুঝতে পারবেন না ।

আমাজন, ইনফ্লুয়েন্সার কি??

এক কথায় বলবো, শোস্যাল মিডিয়া মাধ্যমে আমাজনের প্রডাক্ট সেল করা । হতে পারে ফেসবুক, হতে পারে টুইটার, ইনষ্টাগ্রাম, ইউটিউব, বা পিন্টারেষ্ট ইত্যাদি মাধ্যমে, লিংক শেয়ার করে । তবে, আমারা মার্কেটার রা সবসময় চায় প্যাসিব ইনকাম করতে ।

প্যাসিভ ইনকাম কি?

এক কথায় নিদিষ্ট একটি ইনকাম, যে ইনকামে পথ বের করলে ইনকাম চলতেই থাকে । কাজ করলে হবে, না করলে হবেনা এমন টা নয় । আপনি ঘুমিয়ে থাকবেন তাও ইনকাম হবে, তবে অবশ্যই মেইনটেইন্স করতে হবে ।

যাই হোক আপনি যদি, শোস্যাল মিডিয়া মার্কেটার হয়ে থাকেন, হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য সুবিধা হবে । না হলেও সমস্যা নেই, কারন স্কিল মায়ের পেটের থেকে সঙ্গে করে নিয়ে আসেনা,আর একটা বিষয় বলে রাখি কন্টেন ।

কন্টেন কি?

এক কথায় আমার ভাষায়, আমরা ওয়েব সাইটে, যেসব, ইমেজ, টেক্স, ভিডিও পিডিএফ, ডক, ইফোগ্রাফিক বা যেকোন উপাদান, বা ডাটা ই হলো কন্টেন্ট ।

(আমার পোষ্টি ও একটি কন্টেন্ট) আমাদের তো প্রডাক্ট মার্কেটিং করার জন্য আবশ্যই কন্টেন্ট বানাতে হবে, আমরা কি কি কন্টেন্ট বানাতে পারি একটা প্রডাক্টের গুনাগুন বর্ননা করার জন্য?

একটি, টেক্স(যেমন এ পোষ্টি), হতে পারে একটি ইমেজ কন্টেন্ট, বা ভিডিও ।

(আমি আগেই বলে রাখি, মার্কেটিং এমন একটা বিষয় যা সময়ের সাথে আপডেট হয়, নতুন নতুন ওয়ে বের হয়).

আচ্ছা, আপনি শোস্যাল মিডিয়া, (ফেসবুক,ইউটিউব, বা অন্যান্য ) তে যান,আপনি সবথেকে বেশি কোন কন্টেন্ট দেখতে বেশি পছন্দ করেন?

নিশ্চয় ভিডিও । একটি ভিডিও কন্টেন্টের মাধ্যমে ত্রেতাদের কে বেশি আর্কষন করা যায়। এবং ভিডিও কন্টেন্ট বেশি বেশি মানুষের কাছে পৌছায়।আমি আপনাদের কে, ইউটিউব কে বেছে নিতে বলবো, ইনফ্লুয়েন্সার করার জন্য ।

কেন তাও বলছি, যদিও আপনি যদি ভিডিও মার্কেটিং পারেন, বাকি শোস্যাল মিডিয়া গুলো টার্গেট করা আপনার জন্য বেপার না । আগেই বলেছি প্যাসিভ ইনকামের কথা, আমরা, যখন কোন কিচু খুজি, প্রথমে কোথায় সার্চ দেই?

উ: গুগলে ।

তারপর?

উ: উইউটিউব।

অনেকে আগে ইউটিউবে খুজে না পেলে গুগলে সার্চ করে।কিন্তু ফেসবুকে কি সার্চ করি?বা টুইটার বা অন্যান্য শোস্যাল মিডিয়াতে সার্চ করি?

অবশ্যই না।সর্বচ্ছ যেটা করি, আমাদের নমস্যা রিলেটেড গ্রুফ বা পেজ খুজে বের করি । তাহলে, কোন কিওয়ার্ডে যেমন গুগলে প্রথমে আসলে, ভিজিটার বা কাষ্টমার পাওয়া যাই তেমন, ইউটিউবে পাওয়া যাই । ইউটিউব, এক হিসাবে ভিডিও সার্চ ইঞ্জিন বলতে পারেন ।

তাই, ইউটিউব মার্কেটিং করলে ক্রেতারা আপনার ভিডিও খুজে নিবে । আর অন্যান্য, শোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করলে প্রথমে ক্রেতাদের আপাকে খুজতে হবে । তাহলে কোনটায় বেশি সেল আসার সম্ভাবনা বেশি?

বা, কোনটা প্যাসিভ? যাইহোক, ফেসবুক ও এখন ভিডিও মার্কেটিং এর ফ্লাটফর্ম হিসাবে গড়ে উঠছে। যার ফলে, এটি ভিডিও কন্টেন্ট তৈরি করে সব শোস্যাল মিডিয়া তে, আপলোড করে ক্রেতাদের টার্গেট করতে পারবেন ।

পিন্টারেস্ট কে টার্গেট করা যাই, কারণ আমেরিকার একটি মেজরিটি পারসন পিন্টারেস্ট এ তাদের প্রবলেম সল্যুশন এর জন্য গুগল এর মতো সার্চ ইঞ্জিন হিসাবে ব্যবহার করে । তো পিন্টারেস্ট শুধু সোশ্যাল মিডিয়া নয়, মার্কেটার দের জন্য অর্গানিক ট্রাফিক এর একটি মাধ্যম । সো, পিন্টারেস্ট অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সম্পুর্ন্ন আলাদা । পরবর্তী তে পিন্টারেস্ট মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো ।

যাই হোক, এতক্ষনে বুঝে গেছেন, আমারা কিভাবে মার্কেটিং করতে চাচ্ছি । ধরুন, আমরা এবছরের সেরা মোবাইল গুলা রিভিউ করবো,তাহলে, আমাদের আমাজনে যেয়ে রিসার্চ করতে হবে, এবছররেন সেরা ৫ টা বা ১০ টা ফোন গুলা।সেই প্রডাক্ট গুলার ভিডিও, (যদি থাকে আমাজনে, বা ঐ কোম্পানির ওয়েবসাইটে)সেই প্রডাক্ট গুলার, সুবিধা, অসুবিধা, গুনাগুন ইত্যাদি ডেটা নিয়ে,প্রডাক্ট গুলার, ১ থেকে ১০ টা রাংকিং করে, সুন্দর এনিমিশন বা স্লাইড বা সাথে ভয়েজ এড করে ।

একটি ভিডিও বানাবো, এবং ইউটিউবে বা অন্যান্য শোস্যাল মিডিয়াতে আপলোড দিবো।এবং ভিডিও ডেসক্রিপশনে প্রডাক্ট গুলার লিংক দিব । তবে, আমরা প্রডাক্ট গুলার প্রাইস মেনশন করবোনা।বলবো, আপডেট প্রাইস দেখে আসুন ।

মনেকরুন কোন কাষ্টমার যদি প্রাইস দেখার কৌতুহলে হলেও ঐ লিংকে ভিজিট করে, আগামি ২৪ ঘন্টায় আমাজন থেকে যে প্রডাক্ট ই কিনুক না কেন আপনি তার কমিশন পেয়ে যাবেন।তাহলে, আপনাদের মার্কেটিং এর কাজ পরে, আগে কি করতে হবে ?

ভিডিও কনটেন্ট বানানো শিখতে হবে ।

তার জন্য কি কি সফটওয়ার শিখতে হবে??

আপাত্ত “ক্যামতশিয়া” শিখলে যথেষ্ট, যদি ভয়েজ এড করতে চান তবে, ওয়াডাসিটি টা শিখে নিয়েন, (অপশনাল)আমি আগেই বলেছি, আপাতত্ত প্রাকটিক্যাল কিচু দেখাবো না, তাই।ইউটিউব থেকে ক্যামতাশিয়া, শিখে ফেলেন । (২-৩ দিন বা ২-৩ ঘন্টার মধ্যে বেসিক শেখা সম্ভাব)তারপর, আমাজন থেকে কিচু প্রডাক্টের ইমেজ, ডাটা বা ভিডিও নিয়ে, ভিডিও বানানোর চেষ্টা করেন ।

প্রথমে ভালো হবেনা, আস্তে আস্তে ভাল হবে । আর আপনাদের ভিডিও গুলা আমার কমিউনিটি (নিশ স্কুল ) গ্রুফে শেয়ার করবেন । আর আরো বিস্তারিত, পরবর্তি কিচুদিন পর শেয়ার করবো, আপনাদের ভাল রেসপন্স পেলে।তাছাড়া ভয়েজ এড করার বিষয় কিচু স্পেশাল প্রাকটিক্যাল টিপস শেয়ার করবো ।

কিভাবে ৯০% ন্যাচারাল ভয়েজ জেনারেট করা যায়

আপাতত্ত, এ কাজটি শিখতে থাকেন।সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।পরবর্তী পোষ্ট গুলা পড়তে থাকবেন,আর যারা, ওয়েবসাইট দিয়ে এস.ই.ও করতে চায় তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, ভিডিও কিন্তু এখন সবচেয়ে ক্লিক এবল কন্টেন।ওয়েব সাইটে, ইমেজ, টেক্স এর পাশাপাশি ভিডিও ভ্যালু অনেক।যারা ওয়েব সাইটে এসে টেক্স পড়তে বোরিং ফিল করে, তারা ভিডিও থাকলে দেখতে থাকে ।

তাছাড়া, গুগল ও যে পেজে ভিডিও আছে তাকে একটু বেশি পছন্দ করে।পোষ্টি ভাল লাগলে শেয়ার করে বা আমার গ্রুফে মেম্বার এড করে কমিউনিটি বড় করতে সাহায্য করুন ।

Leave a Comment